icon/64x64/climate জলবায়ু

সামরিক শাসন কিভাবে মিয়ানমারকে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রতি আরও ঝুঁকিপূর্ণ করে তুলছে

একটি ঘূর্ণিঝড় কিংবা একটি তীব্র খরার ঘটনায় মিয়ানমারে সহিংসতার মাত্রা হয়ত আরো দুর্বিষহ করে তুললেও, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এবং সুশীল সমাজ নানা প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে এই ধরনের ঝুঁকি হ্রাসে ভূমিকা রাখতে পারে
<p>মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে নারীরা পানি সংগ্রহের জন্য হেঁটে যাচ্ছে, ছবিটি ২০১৬ সালের তোলা। কেবলমাত্র সামরিক শাসনের কারনে তীব্র খরার মতো ঘটনায় প্রয়োজনীয় মানবিক সহায়তার বিষয়টিও  রাজনীতিতে পরিণত করতে পারে, যার প্রভাব ক্ষতিগ্রস্ত জনগোষ্ঠীর ওপরেই পড়বে। (ছবি: এলামি)</p>

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে নারীরা পানি সংগ্রহের জন্য হেঁটে যাচ্ছে, ছবিটি ২০১৬ সালের তোলা। কেবলমাত্র সামরিক শাসনের কারনে তীব্র খরার মতো ঘটনায় প্রয়োজনীয় মানবিক সহায়তার বিষয়টিও  রাজনীতিতে পরিণত করতে পারে, যার প্রভাব ক্ষতিগ্রস্ত জনগোষ্ঠীর ওপরেই পড়বে। (ছবি: এলামি)

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে মারাত্বক হুমকির থাকা বিশ্বের অন্যতম একটি দেশ মিয়ানমার। এটি ঘূর্ণিঝড়, বন্যা এবং খরার মতো চরম আবহাওয়ার প্রভাবে বিপদগ্রস্ত একটি দেশ, সেই  সাথে এ ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগের ক্ষয়ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে প্রয়োজনীয় অভিযোজনের দিক থেকেও দূর্বল একটি দেশ।

জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাবে সবচেয়ে বেশি ক্ষয়ক্ষতির মুখোমুখি রয়েছে তারাই যে সম্প্রদায়গুলো সহিংস সংঘর্ষের সাথে জড়িত থাকার পাশাপাশি যেখানে সুশাসনের অভাবের সঙ্গে সঙ্গে সম্পদের সীমাবদ্ধতাও রয়েছে।

এই নিবন্ধ সম্পর্কিত তথ্য

এই নিবন্ধটি ২০২২ সালের মে মাসে প্রকাশিত স্টকহোম ইন্টারন্যাশনাল পিস রিসার্চ ইনস্টিটিউটের এনভায়রনমেন্ট অব পিস প্রতিবেদনের প্রাপ্ত ফলাফলের সার-সংক্ষেপ যার সহ-লেখক ছিলেন কিউংমি কিম। প্রতিবেদনটি পরিবেশ এবং সহিংসতামূক্ত শান্তিকালীন একটি অবস্থার মধ্যে বিদ্যমান  জটিল সম্পর্ককে একটি আন্তঃসম্পর্কিত সমস্যার পাশাপাশি একটি সংযুক্ত সমাধান হিসাবেও বিশ্লেষণ করেছে।

মিয়ানমারে, জটিল রাজনৈতিক ও নিরাপত্তা পরিস্থিতির কারণে আরো তীব্র এবং ঘন ঘন চরম আবহাওয়ার প্রভাবকে আরও ভয়াবহ করে তুলতে পারে। সেই ১৯৪৭ সাল থেকে গৃহযুদ্ধের দীর্ঘ ইতিহাস থাকা সত্বেও গত বছর সামরিক জান্তা ক্ষমতা দখলের পর থেকে, মিয়ানমার অভূতপূর্ব মাত্রায় সহিংসতার সম্মুখীন হচ্ছে।

রাজনৈতিক সহিংসতার কারণে ২০২১ সালে মিয়ানমারে ১১,০০০  এরও বেশি মৃত্যুবরণ করেছে বলে ধারণা করা হয়। সেনাবাহিনী ও পুলিশের ক্র্যাক ডাউনের পরিপ্রেক্ষিতে কয়েক ডজন স্থানীয় মিলিশিয়া গ্রুপ তৈরি হয়েছে দেশটিতে। ২০২১ সালের মে থেকে, স্থানীয় মিলিশিয়া গোষ্ঠীগুলির মধ্যে সংঘর্ষ – যা সম্মিলিতভাবে পিপলস ডিফেন্স ফোর্স নামে পরিচিত – এবং, নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা দেশব্যাপী ছড়িয়ে পড়েছে যা কিনা পূর্বের শান্তিপূর্ণ সাগাইং এবং ম্যাগওয়ে অঞ্চলগুলিকেও প্রভাবিত করেছে।

অনেকের আশঙ্কা এই উচ্চ এবং তীব্র সহিংসতা বছরের পর বছর স্থায়ী হতে পারে, কারণ উভয় পক্ষই আলোচনা করতে ইচ্ছুক নয়।

অভ্যুত্থান এবং রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা বাহিনী এবং জান্তা বিরোধী জোটের মধ্যে সহিংসতার পরবর্তীকালে জোরদার হওয়ায় এরই মধ্যে জলবায়ু অভিযোজনে মিয়ানমারের সাম্প্রতিক উন্নয়ন অগ্রগতিকে আগের মতোই নাজুক অবস্থায় নিয়ে গেছে।

পহেলা ফেব্রুয়ারী অভ্যুত্থান এবং রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা বাহিনী এবং জান্তা বিরোধী জোটের মধ্যে সহিংসতার পরবর্তীকালে জোরদার হওয়ায় এরই মধ্যে জলবায়ু অভিযোজনে মিয়ানমারের সাম্প্রতিক উন্নয়ন অগ্রগতিকে আগের মতোই নাজুক অবস্থায় নিয়ে গেছে। সামরিক জান্তা এবং তার বিরোধীদের মধ্যে এই ধরনের “হিংসাত্মক অচলাবস্থা” অব্যাহত থাকলে জলবায়ু-সম্পর্কিত নিরাপত্তা হুমকিগুলি এখন আরও জটিলতর হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

মিয়ানমারের অতীত ইতিহাসের উপর ভিত্তি করে, এমন একটি ঝুঁকিও রয়েছে যে সহিংসতার এই উত্থান মানবিক সহায়তাকে রাজনীতিতে পরিণত করতে পারে, বড় প্রাকৃতিক দুর্যোগের প্রেক্ষিতে সংস্থাগুলি ক্ষতিগ্রস্ত জনসংখ্যার সুবিধা পাওয়ার সুযোগকে প্রত্যাখ্যান করে।

দুটি বিষয় বা দৃশ্যকল্প অত্যন্ত সঠিকভাবে বিশ্লেষনে সহয়তা করবে যে কিভাবে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মিয়ানমারের নিরাপত্তা পরিস্থিতির সাথে বিপজ্জনক ভাবে সম্পর্কিত।

দৃশ্যকল্প ১ : রাখাইন রাজ্যের ঘূর্ণিঝড়

প্রথম দৃশ্যকল্প একটি “দ্রুত-সূচনা ঘটনা” – পশ্চিম উপকূলে রাখাইন রাজ্যের মতো সংঘাতপূর্ণ অঞ্চলে একটি বড় ঘূর্ণিঝড়। জলবায়ু পরিবর্তনের সাথে সাথে মিয়ানমারে ঘূর্ণিঝড় ক্রমশ বাড়তে শুরু করেছে। ২০০০ সালের আগে, গড়ে প্রতি তিন বছরে একবার মিয়ানমারের উপকূলে ঘূর্ণিঝড় আঘাত করতো। তারপর থেকে, এটি প্রতি বছরই ঘটে চলেছে।

মানুষের উপর এর প্রভাবের মাত্রা যতটাই প্রাসঙ্গিক কারনের উপর নির্ভর করে ঠিক ততটাই দুর্যোগের মাত্রার উপরেই নির্ভর করে, বিশেষ করে দুর্যোগের প্রস্তুতির বিষয়টিও এক্ষেত্রে প্রনিধানযোগ্য। ২০০৮ সালে, ঘূর্ণিঝড় নার্গিসে প্রায় ১৪০,০০০ মানুষের মৃত্যু হয় এবং এর ফলে কমপক্ষে ২.২ মিলিয়ন মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়। সেই বিপর্যয় মিয়ানমারকে কীভাবে দুর্যোগ প্রস্তুতি, ত্রাণ ও পুনর্গঠন ব্যবস্থা উন্নত করা যায় সে বিষয়ে মূল্যবান শিক্ষা দিয়েছিল।

people walking on a street coated with fallen trees and other debris
২০০৮ সালে ঘূর্ণিঝড় নার্গিসের পরে, মিয়ানমারের ইয়াঙ্গুনের একটি রাস্তা দিয়ে হেঁটে চলছে সাধারন মানুষজন, ছবিতে দেখা যাচ্ছে ঘুর্নিঝড়ের পর সড়কে উপড়ে পড়া গাছ এবং অন্যান্য ধ্বংসাবশেষে (ছবি: এলামি)

দুর্ভাগ্যবশত, তখন থেকে এই ক্ষেত্রে যেসব  অগ্রগতি হয়েছিল, ২০২১ সালের অভ্যুত্থানের পর তা বলতে গেলে উল্টো পথে হাঁটতে শুরু করেছে,  কেবলমাত্র নাগরিক সমাজের উপর অভ্যুত্থানের বিধ্বংসী প্রভাবের কারণে। এখন যদি রাখাইন রাজ্যে কোনো ঘূর্ণিঝড়ের ঘটনা ঘটে তবে সেটি শুধুমাত্র একটি মানবিক বিপর্যয়ই তৈরি করবে না বরং স্থানীয় রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা এবং সংঘাতের সাথে মিথস্ক্রিয়া করবে, এমনকি জাতীয় এবং আঞ্চলিক ক্ষেত্রেও এর সুদূরপ্রসারী প্রভাব ছড়িয়ে পড়বে।

রাখাইন রাজ্যটি সামগ্রীক প্রেক্ষাপটে রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে গণহত্যার দৃশ্যকে তুলে ধরে এবং এটি আরাকান আর্মি (একটি বিদ্রোহী গোষ্ঠী যা মূলত জাতিগত রাখাইন জনসংখ্যা দ্বারা সমর্থিত) এবং মিয়ানমার সেনাবাহিনীর মধ্যে একটি সক্রিয় বিরোধপূর্ণ একটি অঞ্চল। একটি বড় ঘূর্ণিঝড় জাতিগত রাখাইন এবং রাষ্ট্রহীন রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর জন্য বেশ কিছু ঝুঁকির সম্মুখীন হবে। বিশৃঙ্খলার পরিপ্রেক্ষিতে, আরাকান আর্মি স্থানীয় জনগোষ্ঠী এবং আঞ্চলিক নিয়ন্ত্রণের উপর তার প্রভাব আরও জোরদার করার সুযোগ গ্রহণ করবে বলে স্বাভাবিকভাবে মনে করা যেকেই পারে,  যা সহিংসতাকে আরো বাড়িয়ে তুলতে পারে। সামরিক সরকার হয়ত ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় মানবিক সহায়তার জন্য সংস্থাগুলোর প্রবেশাধিকার অগ্রাহ্য করবে যেমনটি তারা করেছিল ঘূর্নিঝড় নার্গিসের পর।

এর উপরে রয়েছে রাখাইন রাজ্যের সড়ক এবং যোগাযোগ অবকাঠামো যা দেশের সব অঞ্চলের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ, তাই মানবিক সাহায্য না পৌঁছানো পর্যন্ত জনগণ কার্যকরভাবে বিচ্ছিন্ন থাকবে।

মিয়ানমারে এখনও ৬০০,০০০ রোহিঙ্গার বেশির ভাগই রাখাইন রাজ্যে রয়েছে। এদের মধ্যে প্রায় ১৫০,০০০ জনই বাস্তুচ্যুতির শিকার।  তারা সম্ভবত একটি বড় দুর্যোগে আরও সীমাহীন কষ্টের সম্মুখীন হবে। তাদের অনেক অস্থায়ী শিবির ইতিমধ্যেই উপচে পড়েছে এবং খাবার, পানি এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় জিনিসের প্রাপ্তির সুযোগ অত্যন্ত সীমিত।যদি, আরো একটি ঘূর্ণিঝড়ের ঘটনা ঘটে, তাহলে আরও বেশি রোহিঙ্গা সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করবে, যেখানে ইতিমধ্যে এক মিলিয়নেরও বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থী রয়েছে। এটি প্রতিবেশী দেশে উত্তেজনা এবং নিরাপত্তার সমস্যা আরও বাড়িয়ে তুলতে পারে।

দৃশ্যকল্প ২: মধ্য মিয়ানমারে তীব্র খরা

দ্বিতীয় দৃশ্যকল্পটি খুব বাস্তব – একটি সুদূরপ্রসারী ধীর কিন্তু চলমান প্রাকৃতিক বিপর্যয়। মধ্য মিয়ানমারের শুষ্ক অঞ্চলে খরা আরও ঘন ঘন এবং আরও তীব্র হচ্ছে।

সাগাইং এবং ম্যাগওয়ে অঞ্চলে, বেশিরভাগ জনগোষ্ঠী তাদের জীবিকা নির্বাহের জন্য কৃষির উপর নির্ভরশীল। “বিপ্লবী” এবং সরকারী বাহিনীর মধ্যে চলমান সংঘর্ষের কারণে, ব্যাপক বাস্তুচ্যুতি এবং সহিংসতার ঘটনা ঘটছে সেখানে যার ফলে খাদ্য উৎপাদন মারাত্বকভাবে ব্যাহত হচ্ছে।

শুষ্ক অঞ্চলের কৃষকরা বছরের পর বছর ধরে খরার প্রভাব ভোগ করেছে এবং কোভিড-১৯ মহামারীর অর্থনৈতিক মন্দার কারণে তাদের সমস্যা আরও বেড়েছে। অভ্যুত্থানের পরিপ্রেক্ষিতে সংঘাত ও রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা বৃদ্ধি পেয়েছে, আর ইউক্রেনের যুদ্ধের কারণে সারের দাম বেড়ে যাওয়ায় এবং শস্যের দাম দ্রুত কমে যাওয়ায় সব মিলে ক্ষুধা ও দারিদ্র্য আরো তীব্রতর হচ্ছে। 

আরও গুরুতর খরার ফলে শুষ্ক অঞ্চলে দরিদ্র কৃষকদের সংখ্যা বৃদ্ধি পাবে। এই বছরের শুরুর দিকে নিঃস্ব কৃষকদের প্রতিরোধ গোষ্ঠীতে যোগদানের রিপোর্ট বিবেচনা করে এর রাজনৈতিক প্রভাব অপরিসীম হতে পারে।

শাসনের ঘাটতি এবং সীমিত আন্তর্জাতিক সমর্থন

মিয়ানমারের সমাজকল্যাণ, ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রণালয়ের একটি দায়িত্ব হচ্ছে সাধারণ প্রশাসনের মাধ্যমে প্রাকৃতিক  দুর্যোগ পরবর্তী প্রতিক্রিয়া সমন্বয় করা। কিন্তু দেশটিতে কোনো বড় ধরনের বিপর্যয় ঘটলে এই প্রতিষ্ঠানগুলো স্থানীয় কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সফলভাবে নেতৃত্ব দিচ্ছে বা সমন্বয় করছে কিনা তা কল্পনা করা কঠিন।

অনেক অভিজ্ঞ বেসামরিক কর্মচারী অভ্যুত্থানের পরে গড়ে ওঠা একটি গণ আইন অমান্য আন্দোলনের অংশ হিসাবে জান্তার অধীনে কাজ করতে অস্বীকার করেছেন। সরকারী কর্মকর্তা এবং স্থানীয় প্রশাসকরা যারা কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন বা কাজে ফিরে যেতে বাধ্য করা হয়েছে তাদের বহিষ্কৃত করা হয়েছে এবং কখনও কখনও হত্যা করা পিপলস ডিফেন্স ফোর্স  প্রশাসনিক ভবনগুলি আক্রমণ করছে এবং অনেক ক্ষেত্রে ধ্বংস করা হয়েছে।

যেহেতু মিয়ানমারের পরের সরকারগুলি স্থলভাগে পরিস্থিতির উপর সীমিত নিয়ন্ত্রণ রেখেছে, তাই স্থানীয় সম্প্রদায়গুলিকে জলবায়ু প্রভাবের জন্য নিজেদেরকে খাপ খাইয়ে নিতে এবং প্রস্তুত করার জন্য ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। উদাহরণস্বরূপ, কয়েক বছর ধরে, মধ্য মিয়ানমারের কৃষকরা ফসলের পরিবর্তন এবং তাদের আয়ের উৎস বৈচিত্র্যের মাধ্যমে শুষ্ক জলবায়ুতে পরিবর্তনের প্রভাবের সাথে খাপ খাইয়ে নিচ্ছে। বিভিন্ন প্রয়োজনে জনসংখ্যার চাহিদা মেটাতে জনগোষ্ঠীর সাথে সংহতি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। যাই হোক, জান্তার অধীনে আন্তর্জাতিক পক্ষগুলোর এই ধরনের সম্প্রদায়-নেতৃত্বাধীন প্রচেষ্টাকে সমর্থন করা কঠিন।

স্টকহোম ইন্টারন্যাশনাল পিস রিসার্চ ইনস্টিটিউটের সাম্প্রতিক প্রতিবেদন এনভায়রনমেন্ট অফ পিস: সিকিউরিটি ইন এ নিউ এরা অব রিস্ক-এ বলা হয়েছে পরিবেশ ও নিরাপত্তা চ্যালেঞ্জের মধ্যে সম্পর্ক প্রায়ই গভীর এবং জটিল  যা জলবায়ু পরিবর্তনকে “হুমকি গুণক” হিসাবে সাধারণ ধারণার বাইরে চলে যায়।

মিয়ানমারের ক্ষেত্রে, অভ্যুত্থান জলবায়ু কর্মের অগ্রগতিকে স্থগিত করেছে। দেশের প্রাণবন্ত সুশীল সমাজ – পরিবেশগত এনজিও সহ, যারা গণতান্ত্রিক সূচনা যুগে জলবায়ু-অভিযোজন নীতিতে বিভিন্নভাবে তাদের মতামত প্রদান করেছিল – প্রায় সবাই আত্মগোপনে বা নির্বাসনে চলে গেছে।

গ্লোবাল এনভায়রনমেন্টাল ফ্যাসিলিটি, একটি অন্যতম প্রধান আন্তর্জাতিক জলবায়ু তহবিল, অভ্যুত্থানের পরে মিয়ানমারে  কাজ করার ক্ষেত্রে খুব বেশি রাজনৈতিক ও সামাজিক ঝুঁকির আশঙ্কায় তারা তাদের কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়। মিয়ানমারের মতো অত্যন্ত ভঙ্গুর দেশে (অভ্যুত্থানের আগে) মাথাপিছু জলবায়ু অর্থায়ন অ-ভঙ্গুর দেশগুলির জন্য এর মাত্র ১./৮০। এই বৈষম্য দূর করা দরকার।

এই পরিস্থিতিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কি করা উচিত?

মিয়ানমারের মতো প্রেক্ষাপটে কাজ করা আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থা এবং পক্ষগুলোর জন্য ব্যবহারিক এবং নৈতিক দিক থেকে ব্যাপক চ্যালেঞ্জের। জলবায়ু অভিযোজন তহবিল এবং পরিবেশ নিয়ে কাজ করা আন্তর্জাতিক এনজিওদের দেশটিতে প্রবেশের বিনিময়ে সামরিক শাসনকে বৈধতা দেওয়া উচিত হবে না। যথাযথ জবাবদিহিতা এবং সমতা ব্যবস্থা ছাড়া, পক্ষপাতদুষ্ট এবং কর্তৃত্ববাদী সরকারের সাথে সহযোগিতা পথগুলো অকার্যকরতার  দিকে নিয়ে যেতে পারে এবং দুর্বলতাকে শক্তিশালী করতে পারে।

মিয়ানমারের শান্তি ও গণতন্ত্রের সমর্থকদের অবশ্যই জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবেলায় স্থানীয় জনগণের প্রচেষ্টাকে ক্ষমতায়ন ও সমর্থন করার জন্য সৃজনশীল উপায়ের কথা ভাবতে হবে।

এর পরিবর্তে, আন্তর্জাতিক পক্ষগুলোর জন্য সম্ভবত সবচেয়ে প্রতিশ্রুতিশীল পদ্ধতিটি হল দেশের অবশিষ্ট কয়েকটি সুশীল সমাজ গোষ্ঠী এবং পরিবেশ নিয়ে প্রবাসে কাজ করা  এনজিওগুলির সাথে পরামর্শ করা। এর মাধ্যমে আন্তর্জাতিক পক্ষসমূহ এবং পরিবর্তনশীল জলবায়ু এবং পরিবেশগত অবস্থার সাথে খাপ খাইয়ে নেওয়ার জন্য প্রযুক্তিগত দক্ষতা এবং সংস্থানগুলির অভাবে দুর্বল স্থানীয় জনগণের মধ্যে সংলাপের মাধ্যমে হিসাবে কাজ করতে পারে।

মিয়ানমারে কোনো অর্থবহ রাজনৈতিক পরিবর্তনের অনুপস্থিতিতে এই ধরনের হস্তক্ষেপ সম্ভবত ছোট আকারে থেকে যাবে। মিয়ানমারে গণতন্ত্রে ফেরার রাস্তা এখনো অনিশ্চয়তা ও বিপদে ভরা বলে মনে হচ্ছে। তাই এরই মধ্যে, মিয়ানমারের শান্তি ও গণতন্ত্রের সমর্থকদের অবশ্যই জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবেলায় স্থানীয় জনগণের প্রচেষ্টাকে ক্ষমতায়ন ও সমর্থন করার জন্য সৃজনশীল উপায়ের কথা ভাবতে হবে।

একটি মন্তব্য যোগ করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Reader Survey

Take our 5-minute reader survey

for a chance to win a $100 gift card