চলতি মাসে মেক্সিকোর কানকুনে জীববৈচিত্র্য সংক্রান্ত জাতিসংঘ সনদ (সিবিডি)- এর আওতায় অনুষ্ঠিত আন্ত:রাষ্ট্রীয় সম্মেলনে প্রকৃতি ও জীববৈচিত্র্য সুরক্ষায় আরো জোরালো ভূমিকাসহ বেশ বিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে কঠোর সিন্ধান্ত নেয়া হয় যাতে করে প্রাকৃতিক সম্পদের দীর্ঘমেয়াদি ব্যবহার নিশ্চিত করাসহ এর সুষম বন্টন নিশ্চিত করা যায়। সিবিডি’র প্রায় সবগুলো পক্ষ অর্থাৎ জাতিসংঘ ছাড়া বিশ্বের প্রায় সবগুলো দেশই অর্থনৈতিক সেক্টরগুলোতে ব্যবহৃত আইন ও নীতির ক্ষেত্রে জীববৈচিত্র্যের বিষয়সমূহকে অন্তর্ভূক্ত করবে। বিশেষ করে অর্থনৈতিক সেই সব নীতির সঙ্গে যার সাথে প্রকৃতি ও জীববৈচিত্র্য কিছুটা হলেও সম্পর্কযুক্ত। এবারই প্রথমবারের মতো উচ্চ-পর্যায়ের বৈঠকগুলোতে বিভিন্ন দেশের পরিবেশ মন্ত্রীসহ কৃষি, বন, মৎস ও পর্যটন বিষয়ক মন্ত্রীরা অংশ গ্রহন করেন।

এবারের সম্মেলনের কানকুন ঘোষণায় উপস্থিত মন্ত্রীরা উল্লিখিত সব সেক্টরে সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ নেয়ার ব্যাপারে রাজী হন। এক্ষেত্রে তারা সরকারের সব পর্যায়ে এবং সব সেক্টরের সাথে সমন্বয় করে রাষ্ট্র ব্যবস্থাপনায় জীববৈচত্র্যকে সার্বিক প্রাধান্য দিতে কার্যকর প্রাতিষ্ঠানিক ব্যবস্থাপনা, আইনগত পরিকাঠামো ও কর্মকৌশল প্রণয়নে একমত হয়েছেন।

রাষ্ট্রসমূহের এই প্রতিশ্রুতির মধ্য দিয়ে একটি বিষয় অত্যন্ত পরিস্কার হয়ে উঠেছে, তা হচ্ছে, এ ধরনের কর্মকৌশলের মাধ্যমে জীববৈচিত্র্যের যে মূল্যবোধ রয়েছে তা জাতীয় ও রাষ্ট্রীয় সিদ্ধান্ত গ্রহনের ক্ষেত্রে প্রতিফলিত হবে এবং এর ফলে জীববৈচিত্র্যের বিষয়টি নীতি প্রণয়নের ক্ষেত্রে যথোপযুক্ত মর্যাদা পাবে।

এদিকে নানা বিষয়ে বেশ কিছু অগ্রগতি হলেও উন্নত ও উন্নয়নশীল দেশগুলোর মধ্যে একধরনের দুরত্ব সৃষ্টি হয়েছে এবার। এই বিভক্তির কারনে জেনেটিক সিকোয়েন্স সম্পর্কিত ডিজিটাল তথ্য নিয়ে যে উদ্বেগের সৃষ্টি হয়েছে তা সিবিডি ফোরামে সুদূরপ্রসারী প্রভাব ফেলতে পারে বলে অনেকেই আশংকা করছেন। ২০১৮ সালে অনুষ্ঠিতব্য সম্মেলনে এই বিষয়গুলো হয়ত সমাধান করা হবে মনে করা হচ্ছে।

ভালো ও মন্দ খবর

গত ৪ থেকে ১৭ ডিসেম্বর কানকুনে অনুষ্ঠিত সিবিডি সম্মেলনে বিশ্বের ১৬৭টি দেশ থেকে প্রায় চার হাজার প্রতিনিধি অংশ নেয়। সম্মেলন শুরু হয় বড় ধরনের বেশ কিছু ইতিবাচক ঘোষণার মধ্য দিয়ে। আগামী ২০৩০ সালের মধ্যে ২২ মিলিয়ন হেক্টর ক্ষতিগ্রস্থ্য ভূমি পূনরুদ্ধার করে প্রাকৃতিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনার ঘোষণা দেয় ব্রাজিল। কোনো দেশের পক্ষ থেকে এ ধরনের ঘোষণা এবারই প্রথম। মেক্সিকো চারটি নতুন জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণাগারসহ পাঁচটি সংরক্ষিত এলাকা প্রচলনের ঘোষণা দেয়। অন্যান্য বড় প্রতিশ্রুতির মধ্যে জাপান উন্নয়নশীল দেশগুলোর জন্য নানা ধরনের সক্ষমতা বৃদ্ধিমূলক কর্মকান্ড পরিচালনার জন্য ১৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সহায়তার ঘোষণা দিয়েছে।

তবে এই আসরের সব খবরই কিন্তু আশার বাণী শোনাতে পারেনি। পরিবেশ সংরক্ষণ নিয়ে বিশ্বব্যাপী কাজ করা সংস্থা আইইউসিএন জানিয়েছে নতুনভাবে চিহ্নিত ৭০০ পাখি প্রজাতির মধ্যে ১১ শতাংশই বিলুপ্তির হুমকির মুখে রয়েছে। গত তিন দশকে জিরাফের সংখ্যা বিশ্বব্যাপী ৪০ শতাংশ কমে গেছে। এদিকে সিবিডি সচিবালয় আশংকা প্রকাশ করে বলেছে ২০২০ সালের নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে অবশ্যই পূরণীয় আইচি জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ সংক্রান্ত যে ২০টি লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয় তার দুই-তৃতীয়াংশ পূরণ না হওয়ার ঝুঁকি অত্যন্ত তীব্র। এই লক্ষ্যমাত্রা পূরণ না হলে তা জনজীবনে মারাত্বক নেতিবাচক প্রভাব পড়বে।

কেবলই সিদ্ধান্ত

কানকুনে অংশগ্রহনকারী বিভিন্ন দেশের সরকার টেকসই গুল্ম থেকে শুরু করে জলবায়ু সংক্রান্ত জৈব-প্রকৌশল, ভিনদেশী পরক  প্রজাতি, সমুদ্রতলদেশের আবর্জনা ও শব্দদূষণসহ ৭০টিরও বেশি বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহন করে।

তারা পরিবেশ পূণ:রুদ্ধারের লক্ষ্যে একটি স্বল্পমেয়াদী কর্মকৌশল প্রণয়নের সিদ্ধান্ত গ্রহন করে যার মধ্যে খাদ্য নিরাপত্তায় অপরিহার্য পরাগবাহীদের সংরক্ষণ ও ব্যবস্থাপনাসহ আইচি লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে কিছু নির্দেশক চিহ্নিত করা হয়।

অন্যান্য সিদ্ধান্তসমূহের মধ্যে রয়েছে প্রথাগত জ্ঞানের পূনরুদ্ধার, পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্যের দিক থেকে তাৎপর্যপূর্ণ মহাসাগর এলাকা, ব্যবস্থাপনা সক্ষমতা বৃদ্ধি এবং একটি বৈশ্বিক যোগাযোগ কৌশল প্রণয়ন। এছাড়াও সিবিডির বহুপাক্ষিক অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনার লক্ষ্যে ‘গ্লোবাল এনভায়রণমেন্ট ফ্যাসিলিটি’ নিশ্চিত করতে দিকনির্দেশনা প্রণয়নের বিষয়েও একমত হয় অংশগ্রহনকারী দেশসমূহ।

প্রতিবাদ ও অগ্রগতি

অবশ্য অগ্রগতির দিকটি বেশ সহজ ছিল না। সম্মেলন শেষের একদিন আগে আদিবাসী ও স্থানীয় সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিরা আলোচনার টেবিল থেকে বেরিয়ে যান। সেসময় তাদের প্রথাগত জ্ঞান এবং এগুলো মূল¯্রােতের জ্ঞানের সঙ্গে সংমিশ্রণের উপকারীতা নিয়ে আলোচনা হচ্ছিল।

এই জ্ঞান ছড়িয়ে দেয়ার ব্যপারে তাদের মতামত কী হতে পারে সে বিষয়টি বর্ণনা করার ভাষা নিয়ে আলোচনা হচ্ছিল। কিন্তু যে ভাষা এতে ব্যবহার করা হচ্ছিল তাতে এই সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিরা মনক্ষুন্ন হন এবং প্রতিবাদে আলোচনার টেবিল থেকে বেরিয়ে যান। বেসরকারী সংস্থার প্রতিনিধিরা তাদের সাথে সহমত প্রদর্শন করে প্রতিবাদ জানায়।

পরবর্তীতে দীর্ঘ বিতর্কের পর সিবিডির প্রতিনিধিরা এই ভাষা নিয়ে একটি গাইডলাইনের বিষয়ে একমত হন। এতে ‘অগ্রীম সহমত’, ‘অনুমোদন ও অংশগ্রহন’ শীর্ষক শব্দসমূহ ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত হয়। একই সাথে বলা হয়, এসব শব্দ বা ভাষা প্রয়োগের ক্ষেত্রে জাতীয় পর্যায়ে পূর্ণ সম্মানের সাথে ব্যবহার করতে হবে যাতে আদিবাসী ও স্থানীয় সম্প্রদায়ের পূর্ণ সম্মান বজায় থাকে।

নব বিজ্ঞান

আলোচনার অন্যান্য বিতর্কিত বিষয়গুলোর মধ্যে একটি ছিল ‘সিনথেটিক জীববিদ্যা’। এটি নতুন এক ধরনের জীবপ্রযুক্তির সূচনা, প্রকৃতি সংরক্ষণ ও জীববৈচিত্র্যের দীর্ঘমেয়াদী ব্যবহারের ক্ষেত্রে যার  ইতিবাচক সম্ভাবনাও যেমন রয়েছে তেমনি রয়েছে বড় বড় ঝুঁকি। এই প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে জীব ও জড় অর্গানিজম, জেনেটিক পদার্থ উৎপাদন করা সম্ভব। যেমন তথাকথিত জিন শক্তি ব্যবহার করে উদ্ভিদ ও প্রানীর সংখ্যা বৃদ্ধি করা সম্ভব। এই প্রযুক্তি ব্যবহার করে রোগ বিস্তারকরী মশা বা অন্যান্য কীটপতঙ্গের বংশ বিস্তার রোধ করা সম্ভব, এমনকি আগাছায় কীটনাশক সহন করার ক্ষমতাও হ্রাস করা যেতে পারে।

তবে আশংকার কথা হচ্ছে এর মাধ্যমে জীববৈচিত্র্যের উপর মারাত্বক নেতিবাচক প্রভাব পড়ার সম্ভাবনা কিন্তু উড়িয়ে দেয়া যায় না। তাই এ ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহনের আগে সরকারগুলোকে প্রয়োজনীয় সুরক্ষা পদক্ষেপ নেয়ার ব্যাপারে পরামর্শ দেয়া হয়। পাশাপাশি এ ধরনের ঝুঁকি মোকাবেলা ও নিরুপনে প্রচলিত পদ্ধতির সংষ্কার প্রয়োজন বলেও মনে করা হচ্ছে।

এই সিদ্ধান্ত গ্রহনের মধ্য দিয়ে আসলে সিবিডিভূক্ত দেশগুলো সিনথেটিক জীববিজ্ঞান নিয়ে আরো বেশি গবেষণা ও সংলাপের ব্যপারে আগ্রহী হবে। একইসাথে সিবিডি’র বিশেষজ্ঞ দল এ নিয়ে সংশ্লিষ্ট তথ্য পুনরালোচনা ও বিশ্লেষণ করার ব্যাপারো আরো আগ্রহী হবে।

ঝুঁকি নিরুপন ও উপকারীতা বন্টন

এবারের সম্মেলনে সিবিডির কার্টাগেনা প্রটোকলের আওতায় আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। এই প্রটোকলের লক্ষ্য হচ্ছে আধুনীক জীবপ্রযুক্তি ব্যবহার করে উদ্ভাবিত যে কোনো ধরনের জীবন্ত পরিমার্জিত বিভিন্ন অর্গানিজমের নিরাপদ ব্যবহার ও পরিবহন নিশ্চিত করা।

কার্টাগেনা প্রটোকলে সই করা বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধিরা এ বিষয়ে ঝুঁকি পর্যালোচনা, স্থানান্তর ও ব্যবহারের বিষয়ে সুনির্দিষ্ট আলোচনা করেছে।

এছাড়াও সিবিডির নাগোয়া প্রটোকলের আওতায় জেনেটিক সম্পদের ব্যবহার ও উপকারীতা নিয়েও আলোচনা হয়। নাগোয়া প্রটোকলের আওতায় জেনেটিক সম্পদের যোগানদাতা, হতে পারে আদিবাসী কোনো সম্প্রদায় বা কোনো সরকার এবং এদের ব্যবহারকারী যেমন কোনো বিশ্ববিদ্যালয় বা জৈবপ্রযুক্তির কোনো প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে আলোচানার বিষয়বস্তুসমূহ।

২০১৪ সালের পর থেকে এই প্রটোকলের মাধ্যমে একটি বিষয় নিশ্চিত করা হচ্ছে, আর তা হচ্ছে যোগানদাতা ও ব্যবহারকারী উভয়ই পরস্পরের অনুমতি সাপেক্ষে এ ধরনের সম্পদ ও তথ্য ব্যবহার করবে। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রেই বিষয়গুলো এভাবে মেনে চলা হয়নি, তাই এই প্রটোকলে সই করা দেশগুলো এই মর্মে সম্মত হয়েছে যে তারা বৈশ্বিক বহুপাক্ষিক সুবিধা-বিনিময়ের লক্ষ্যে একটি কর্মপহ্না প্রনয়ন করবে।

ডিজিটাল দ্বন্দ্ব

এবারের সম্মেলনে সব থেকে বেশি বিতর্কিত ইস্যুটি ছিল জেনেটিক সম্পদের ডিজিটাল তথ্য ভান্ডারের বিষয়টি। জীববৈচিত্র্য সমৃদ্ধ দেশগুলো যেমন ব্রাজিল, দক্ষিণ আফ্রিকা এবং ভারত সিবিডির নীতি অনুসরণ না করে বানিজ্যিকভাবে বিভিন্ন প্রকল্পে ব্যবহৃত গুরুত্বপূর্ন ডিএনএ সংক্রান্ত তথ্য ইন্টারনেটে প্রকাশের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। তাদের মতে এসব তথ্যের উৎস দেশ ও সম্পদ্রায়ের সাথে অনেক সময়ই আলোচনা না করেই এসব তথ্য প্রচার করা হয়।

এসব তথ্য ইন্টারনেটের মাধ্যমে মুক্তভাবে ছড়িয়ে পড়লে যে কেউই সহজে তা পেয়ে যেতে পারে, এমনকি এসব জেনেটিক সম্পদ সরাসরি ব্যবহার না করেও উন্মুক্ত তথ্য ব্যবহার করেই তাদের স্বার্থ হাসিলের সুযোগ পাবে। উন্নয়নশীল দেশগুলো মনে করছে এর মাধ্যমে ডিজিটাল পাইরেসির ঘটনা ঘটবে। ফলে বিভিন্ন ধরনের উদ্ভিদ, প্রাণী ও অন্যান্য জীববৈচিত্র্যের তথ্য উৎস-দেশ বা সম্প্রদায়ের কোনো রকম উপকার ছাড়াই  বাণিজ্যিকভাবে ব্যবহৃত হবে। কিছু কিছু দেশ অবশ্য এ নিয়ে মতের ভিন্নতা প্রকাশ করেছে। তাদের মতে সিবিডি এবং এর নাগোয়া প্রটোকলের আওতায় কেবল জেনেটিক বস্তুর ব্যবস্থাপনা নিয়েই কথা বলা হয়েছে, তথ্য নিয়ে নয়।

এ সংক্রান্ত বিশেষজ্ঞ দলটি সিবিডি’র বিজ্ঞান, কারিগরী ও প্রযুক্তি বিষয়ক সহায়ক কমিটিকে আগামী বছর একটি প্রতিবেদন পেশ করবে যাতে ২০১৮ সালে মিশরে অনুষ্ঠিতব্য পরবর্তী সিবিডি সম্মেলনে অংশগ্রহনকারী সরকারগুলো এনিয়ে সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত গ্রহন করতে সক্ষমত হয়। যেহেতু সিবিডির তিনটি স্তম্ভের মধ্যে একটি হচ্ছে সহজলভ্যতা ও সুবিধা-বিনিময়, আগামী বছরগুলোতে এক্ষেত্রে এটি উতরে যাওয়াই হবে একটি বড় চ্যালেজ্ঞ। মিশরের পর ২০২০ সালে চীন এবং ২০২২ সালে তুরষ্ক পরবর্তী সিবিডি সম্মেলনের আয়োজন করবে।

 

মাইক শ্যাণান একজন ফ্রিল্যান্স লেখক ও সাংবাদিক যিনি পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কাজ করেন। নিবন্ধটি অনুবাদ করেছেন তানজিলা রওশন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.